ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ১২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পুঁজিবাজারের ৫ কোম্পানির উৎপাদন বন্ধ

  • ডেস্ক :
  • আপডেট সময় ১২:৩২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৬ অক্টোবর ২০২৩
  • 149

পৃথক সময়ে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ১৪ কোম্পানি পরিদর্শন করেছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) পরিদর্শক দল। পরিদর্শনে পাঁচটি কোম্পানির উৎপাদন কার্যক্রম বন্ধ পায়। দুটি কোম্পানির কারখানায় তালা থাকায় প্রবেশ করতে পারেনি।

ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

উৎপাদন বন্ধ থাকা কোম্পানিগুলো হলো- ফ্যামিলিটেক্স, রিজেন্ট টেক্সটাইল, উসমানিয়া গ্লাস, দি ঢাকা ডায়িং অ্যান্ড ম্যানুফ্যাকচারিং, জাহিনটেক্স।

এ ছাড়া নর্দান জুট ম্যানুফ্যাকচারিং ও দুলামিয়া কটন স্পিনিং কোম্পানির কারখানায় প্রবেশ করতে পারেনি ডিএসই।

ডিএসই থেকে সবশেষ পাওয়া তথ্যানুযায়ী, ডিএসইর পরিদর্শক দল সম্প্রতি দি ঢাকা ডায়িং অ্যান্ড ম্যানুফ্যাকচারিং ও জাহিনটেক্স কোম্পানি পরিদর্শন করেন। পরিদর্শনে কোম্পানি দুটির কারখানার উৎপাদন কার্যক্রম বন্ধ পায় পরিদর্শক দল।

এর আগে ফ্যামিলিটেক্সের কারখানা ২৭ সেপ্টেম্বর পরিদর্শন করে। পরিদর্শনকালে কোম্পানিটির উৎপাদন কার্যক্রম বন্ধ পায়। অন্যদিকে ডিএসই উসমানিয়া গ্লাসের কারখানা ২৬ সেপ্টেম্বর পরিদর্শন করে। পরিদর্শনকালে ওই কোম্পানিটির উৎপাদন কার্যক্রম বন্ধ পায়। একই দিনে ২৬ সেপ্টেম্বর রিজেন্ট টেক্সটাইলের উৎপাদন পরিস্থিতি দেখতে কোম্পানিটির কারখানা পরিদর্শন করে ডিএসই। পরিদর্শনকালে কারখানার উৎপাদন বন্ধ পায়। অন্যদিকে ২৪ সেপ্টেম্বর পরিদর্শনকালে দুলামিয়া কটন স্পিনিংয়ের কারখানাটি বন্ধ থাকায় প্রবেশ করতে পারেনি পরিদর্শন দল। কোম্পানিটি প্রবেশ পথে সিলগালা ছিল।

এরও আগে গত ৫ সেপ্টেম্বর নর্দান জুট ম্যানুফ্যাকচারিং পরিদর্শন করেছিল ডিএসই। ওই সময়ে কোম্পানিটির কারখানার প্রাঙ্গণ বন্ধ ছিল। ফলে কারখানার ভেতরে প্রবেশ করতে পারেনি ডিএসই। এছাড়া নর্দান জুটের প্রধান কার্যালয় তদন্ত করতে গিয়েছিল ডিএসই। কিন্তু কোম্পানিটির প্রধান কার্যালয় অন্য নামের একটি কোম্পানি নাম ব্যবহার করছে।

এদিকে পুঁজিবাজারের বেঁধে দেয়া নিয়ম প্রতিপালন, কারসাজি, উৎপাদনসহ বিভিন্ন কার্যক্রম খতিয়ে দেখতে তালিকাভুক্ত ১৪ কোম্পানি পরিদর্শনে মাঠে নেমেছে ডিএসই। এর আগে সব আনুষ্ঠানিকতার পর গত ৩১ জুলাই কোম্পানিগুলোর পরিদর্শন করার ক্ষেত্রে রেগুলেটরদের অনুমতি মেলে।

এ প্রসঙ্গে ডিএসইর প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা (সিওও) এম সাইফুর রহমান মজুমদার বলেন, শেয়ারবাজারের তালিকাভুক্ত ১৪ কোম্পানির পরিদর্শন লক্ষ্যে মাঠে নেমেছে ডিএসই। গত ৩১ জুলাই বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) ওই ১৪ কোম্পানি পরিদর্শন করতে আমাদের অনুমতি দিয়েছে। এ মোতাবেক, আমরা কাজ শুরু করি, পরিদর্শন শেষের দিকে। দ্রুত সময়ের মধ্যে রিপোর্ট বিএসইসিতে জমা দেবো।

নিয়মানুসারে, ‘তালিকাভুক্ত কোনো কোম্পানির পরিদর্শন করার ক্ষেত্রে পুঁজিবাজারের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসিকে জানাতে হবে। পাশাপাশি বিএসইসির অনুমতিক্রমে কোম্পানি পরিদর্শন করতে হবে।’

ডিএসইর এক কর্মকর্তা বলেন, নানা অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে সম্প্রতি ৪২ কোম্পানি পরিদর্শন করার সিদ্ধান্ত নেয় ডিএসই। কিন্তু ১৪ কোম্পানি পরিদর্শন করার অনুমতি পান। এ হিসাবে, সব কোম্পানির পরিদর্শন প্রায় শেষ। কিছু আনুষ্ঠানিকতা বাকি।

তিনি আরো বলেন, ডিএসইর পরিদর্শনে ১৪ কোম্পানির মধ্যে পাঁচটির উৎপাদন কার্যক্রম বন্ধ পায়। দুটিতে তালা থাকায় প্রবেশ সম্ভব হয়নি। এছাড়া বাকি কোম্পানিগুলো উৎপাদন কার্যক্রম চালু থাকলেও নানা অসঙ্গতি পাওয়া গেছে। সবকিছুই রিপোর্ট আকারে বিএসইসিতে জমা দেবো।

বিএসইসি যেসব কোম্পানি ডিএসই পরিদর্শন অনুমতি দেয়, সেগুলো হলো- ফরচুন সুজ, ন্যাশনাল ফিড মিলস, সেন্ট্রাল ফার্মা, সিভিও পেট্রোমিক্যালস, দুলামিয়া কর্টন স্পিনিং মিলস, ফ্যামিলিটেক্স (বিডি), কেয়া কসমেটিকস, খান ব্রাদার্স পিপি ওভেন ব্যাগ, নর্দান জুট ম্যানুফ্যাকচারিং, রিজেন্ট টেক্সটাইল, দি ঢাকা ডায়িং অ্যান্ড ম্যানুফ্যাকচারিং, উসমানিয়া গ্লাস শিট ফ্যাক্টরি, জাহিন স্পিনিং, জাহিনটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ।

ট্যাগস

পুঁজিবাজারের ৫ কোম্পানির উৎপাদন বন্ধ

আপডেট সময় ১২:৩২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৬ অক্টোবর ২০২৩

পৃথক সময়ে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ১৪ কোম্পানি পরিদর্শন করেছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) পরিদর্শক দল। পরিদর্শনে পাঁচটি কোম্পানির উৎপাদন কার্যক্রম বন্ধ পায়। দুটি কোম্পানির কারখানায় তালা থাকায় প্রবেশ করতে পারেনি।

ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

উৎপাদন বন্ধ থাকা কোম্পানিগুলো হলো- ফ্যামিলিটেক্স, রিজেন্ট টেক্সটাইল, উসমানিয়া গ্লাস, দি ঢাকা ডায়িং অ্যান্ড ম্যানুফ্যাকচারিং, জাহিনটেক্স।

এ ছাড়া নর্দান জুট ম্যানুফ্যাকচারিং ও দুলামিয়া কটন স্পিনিং কোম্পানির কারখানায় প্রবেশ করতে পারেনি ডিএসই।

ডিএসই থেকে সবশেষ পাওয়া তথ্যানুযায়ী, ডিএসইর পরিদর্শক দল সম্প্রতি দি ঢাকা ডায়িং অ্যান্ড ম্যানুফ্যাকচারিং ও জাহিনটেক্স কোম্পানি পরিদর্শন করেন। পরিদর্শনে কোম্পানি দুটির কারখানার উৎপাদন কার্যক্রম বন্ধ পায় পরিদর্শক দল।

এর আগে ফ্যামিলিটেক্সের কারখানা ২৭ সেপ্টেম্বর পরিদর্শন করে। পরিদর্শনকালে কোম্পানিটির উৎপাদন কার্যক্রম বন্ধ পায়। অন্যদিকে ডিএসই উসমানিয়া গ্লাসের কারখানা ২৬ সেপ্টেম্বর পরিদর্শন করে। পরিদর্শনকালে ওই কোম্পানিটির উৎপাদন কার্যক্রম বন্ধ পায়। একই দিনে ২৬ সেপ্টেম্বর রিজেন্ট টেক্সটাইলের উৎপাদন পরিস্থিতি দেখতে কোম্পানিটির কারখানা পরিদর্শন করে ডিএসই। পরিদর্শনকালে কারখানার উৎপাদন বন্ধ পায়। অন্যদিকে ২৪ সেপ্টেম্বর পরিদর্শনকালে দুলামিয়া কটন স্পিনিংয়ের কারখানাটি বন্ধ থাকায় প্রবেশ করতে পারেনি পরিদর্শন দল। কোম্পানিটি প্রবেশ পথে সিলগালা ছিল।

এরও আগে গত ৫ সেপ্টেম্বর নর্দান জুট ম্যানুফ্যাকচারিং পরিদর্শন করেছিল ডিএসই। ওই সময়ে কোম্পানিটির কারখানার প্রাঙ্গণ বন্ধ ছিল। ফলে কারখানার ভেতরে প্রবেশ করতে পারেনি ডিএসই। এছাড়া নর্দান জুটের প্রধান কার্যালয় তদন্ত করতে গিয়েছিল ডিএসই। কিন্তু কোম্পানিটির প্রধান কার্যালয় অন্য নামের একটি কোম্পানি নাম ব্যবহার করছে।

এদিকে পুঁজিবাজারের বেঁধে দেয়া নিয়ম প্রতিপালন, কারসাজি, উৎপাদনসহ বিভিন্ন কার্যক্রম খতিয়ে দেখতে তালিকাভুক্ত ১৪ কোম্পানি পরিদর্শনে মাঠে নেমেছে ডিএসই। এর আগে সব আনুষ্ঠানিকতার পর গত ৩১ জুলাই কোম্পানিগুলোর পরিদর্শন করার ক্ষেত্রে রেগুলেটরদের অনুমতি মেলে।

এ প্রসঙ্গে ডিএসইর প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা (সিওও) এম সাইফুর রহমান মজুমদার বলেন, শেয়ারবাজারের তালিকাভুক্ত ১৪ কোম্পানির পরিদর্শন লক্ষ্যে মাঠে নেমেছে ডিএসই। গত ৩১ জুলাই বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) ওই ১৪ কোম্পানি পরিদর্শন করতে আমাদের অনুমতি দিয়েছে। এ মোতাবেক, আমরা কাজ শুরু করি, পরিদর্শন শেষের দিকে। দ্রুত সময়ের মধ্যে রিপোর্ট বিএসইসিতে জমা দেবো।

নিয়মানুসারে, ‘তালিকাভুক্ত কোনো কোম্পানির পরিদর্শন করার ক্ষেত্রে পুঁজিবাজারের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসিকে জানাতে হবে। পাশাপাশি বিএসইসির অনুমতিক্রমে কোম্পানি পরিদর্শন করতে হবে।’

ডিএসইর এক কর্মকর্তা বলেন, নানা অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে সম্প্রতি ৪২ কোম্পানি পরিদর্শন করার সিদ্ধান্ত নেয় ডিএসই। কিন্তু ১৪ কোম্পানি পরিদর্শন করার অনুমতি পান। এ হিসাবে, সব কোম্পানির পরিদর্শন প্রায় শেষ। কিছু আনুষ্ঠানিকতা বাকি।

তিনি আরো বলেন, ডিএসইর পরিদর্শনে ১৪ কোম্পানির মধ্যে পাঁচটির উৎপাদন কার্যক্রম বন্ধ পায়। দুটিতে তালা থাকায় প্রবেশ সম্ভব হয়নি। এছাড়া বাকি কোম্পানিগুলো উৎপাদন কার্যক্রম চালু থাকলেও নানা অসঙ্গতি পাওয়া গেছে। সবকিছুই রিপোর্ট আকারে বিএসইসিতে জমা দেবো।

বিএসইসি যেসব কোম্পানি ডিএসই পরিদর্শন অনুমতি দেয়, সেগুলো হলো- ফরচুন সুজ, ন্যাশনাল ফিড মিলস, সেন্ট্রাল ফার্মা, সিভিও পেট্রোমিক্যালস, দুলামিয়া কর্টন স্পিনিং মিলস, ফ্যামিলিটেক্স (বিডি), কেয়া কসমেটিকস, খান ব্রাদার্স পিপি ওভেন ব্যাগ, নর্দান জুট ম্যানুফ্যাকচারিং, রিজেন্ট টেক্সটাইল, দি ঢাকা ডায়িং অ্যান্ড ম্যানুফ্যাকচারিং, উসমানিয়া গ্লাস শিট ফ্যাক্টরি, জাহিন স্পিনিং, জাহিনটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ।