ঢাকা , মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ৮ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শেয়ারবাজার শক্তিশালী করতে মিউচ্যুয়াল ফান্ড বড় ভূমিকা রাখবে

  • ডেস্ক :
  • আপডেট সময় ১০:৪৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০২৩
  • 111

মিউচুয়াল ফান্ড আমাদের শেয়ারবাজারের খুবই গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। শেয়ারবাজারকে দৃঢ় ও শক্তিশালী অবস্থানে দেখতে চাইলে বাজারে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর সংখ্যা বৃদ্ধি করা প্রয়োজন এবং এ ক্ষেত্রে মিউচ্যুয়াল ফান্ড বড় ভূমিকা রাখবে। মিউচুয়াল ফান্ড খাতকে যত শক্তিশালী করা যাবে, দেশের শেয়ারবাজার ততটাই শক্তিশালী হবে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম।

তিনি বলেন, মিউচুয়াল ফান্ড খাতের উন্নয়নে নিয়ন্ত্রক সংস্থা হিসেবে বিএসইসি সব রকমের চেষ্টা করে যাচ্ছে, আপনারাও আপনাদের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ চেষ্টা অব্যাহত রাখুন। এই খাতকে শক্তিশালী রূপ দিতে কমিশন থেকে সংশ্লিষ্টদের সব ধরনের সহযোগিতা করা হবে।

বুধবার (১৩ ডিসেম্বর) ‘রেগুলেটরি ওভারসাইট অ্যান্ড গর্ভনেন্স অব মিউচুয়াল ফান্ডস ইন বাংলাদেশ’ শীর্ষক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। বাংলাদেশের মিউচুয়াল ফান্ড খাতের অংশীজনদের নিয়ে এ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। এতে দেশের অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি, ফান্ড ম্যানেজার, ট্রাস্টি ও কাস্টডিয়ান কোম্পানিগুলোর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

কর্মশালায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিএসইসি’র নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ রেজাউল করিম। তিনি বাংলাদেশের মিউচুয়াল ফান্ড ইন্ড্রাস্ট্রির উন্নয়নের জন্য এই খাতে সুশাসন নিশ্চিতে সকল অংশীজনের একসাথে কাজ করার উপর জোর দেন। বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে অর্থনীতি, শেয়ারবাজার এবং বিনিয়োগের ক্ষেত্রে মিউচুয়াল ফান্ড গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

বিএসইসি’র নির্বাহী পরিচালক বলেন, মিউচুয়াল ফান্ড খাতে প্রাতিষ্ঠানিক সুশাসন নিশ্চিত করে বিনিয়োগকারীদের আস্থা অর্জন করতে পারলে ও এ খাতে বিনিয়োগে আগ্রহী করতে পারলে এই খাতকে বহুগুণে বৃদ্ধি করা সম্ভব হবে। দেশের অর্থনীতিতে শেয়ারবাজারকে দৃঢ় ও শক্তিশালী অবস্থানে দেখতে চাইলে বাজারে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর সংখ্যা বৃদ্ধি করা প্রয়োজন। এক্ষেত্রে বড় ভূমিকা রাখতে সক্ষম হবে মিউচুয়াল ফান্ড।

কর্মশালায় মূল বক্তব্যে বিএসইসি’র কমিশনার ড. মিজানুর রহমান দেশের শেয়ারবাজারে বিদ্যমান মিউচুয়াল ফান্ডসমূহ এবং এই খাতের সাথে সংশ্লিষ্ট নীতি সংক্রান্ত ইস্যুগুলো এবং এই খাতের বিদ্যমান চ্যালেঞ্জগুলো ও সমাধান নিয়ে আলোচনা করেন। সাম্প্রতিক সময়ে মিউচুয়াল ফান্ডের আয়কর অব্যাহতির বিষয়টি নিয়ে পূর্ণ সমাধানে আসায় তিনি সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা জানান।

বিএসইসি’র কমিশনার বলেন, দেশে মিউচুয়াল ফান্ড খাতের সম্প্রসারণের জন্য আগামীতে সক্ষমতা বৃদ্ধি এবং বিধিবিধান ও নীতি সংশ্লিষ্ট পুনর্গঠনে কমিশন কাজ করছে। এছাড়া এই খাতে রেগুলেটরি অ্যাকশনগুলোর ক্ষেত্রে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি সমন্বিত উদ্যোগেও কাজ করবে।

সভায় এসোসিয়েশন অব অ্যাসেট ম্যানেজম্যান্ট কোম্পানিজ অ্যান্ড মিউচুয়াল ফান্ডসের (এএএমসিএমএফ) প্রেসিডেন্ট হাসান ইমাম, ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদেশের (আইসিবি) প্রাক্তন ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও এইচ এফ অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ফায়েকুজ্জামান, এএএমসিএমএফ’র সহ-সভাপতি ওয়াকার আহমেদ চৌধুরী, এএএমসিএমএফ’র সেক্রেটারি জেনারেল অরুনাংশু দত্তসহ মিউচুয়াল ফান্ড খাত সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ বক্তব্য ও মতামত উপস্থাপন করেন।

ট্যাগস

শেয়ারবাজার শক্তিশালী করতে মিউচ্যুয়াল ফান্ড বড় ভূমিকা রাখবে

আপডেট সময় ১০:৪৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০২৩

মিউচুয়াল ফান্ড আমাদের শেয়ারবাজারের খুবই গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। শেয়ারবাজারকে দৃঢ় ও শক্তিশালী অবস্থানে দেখতে চাইলে বাজারে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর সংখ্যা বৃদ্ধি করা প্রয়োজন এবং এ ক্ষেত্রে মিউচ্যুয়াল ফান্ড বড় ভূমিকা রাখবে। মিউচুয়াল ফান্ড খাতকে যত শক্তিশালী করা যাবে, দেশের শেয়ারবাজার ততটাই শক্তিশালী হবে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম।

তিনি বলেন, মিউচুয়াল ফান্ড খাতের উন্নয়নে নিয়ন্ত্রক সংস্থা হিসেবে বিএসইসি সব রকমের চেষ্টা করে যাচ্ছে, আপনারাও আপনাদের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ চেষ্টা অব্যাহত রাখুন। এই খাতকে শক্তিশালী রূপ দিতে কমিশন থেকে সংশ্লিষ্টদের সব ধরনের সহযোগিতা করা হবে।

বুধবার (১৩ ডিসেম্বর) ‘রেগুলেটরি ওভারসাইট অ্যান্ড গর্ভনেন্স অব মিউচুয়াল ফান্ডস ইন বাংলাদেশ’ শীর্ষক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। বাংলাদেশের মিউচুয়াল ফান্ড খাতের অংশীজনদের নিয়ে এ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। এতে দেশের অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি, ফান্ড ম্যানেজার, ট্রাস্টি ও কাস্টডিয়ান কোম্পানিগুলোর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

কর্মশালায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিএসইসি’র নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ রেজাউল করিম। তিনি বাংলাদেশের মিউচুয়াল ফান্ড ইন্ড্রাস্ট্রির উন্নয়নের জন্য এই খাতে সুশাসন নিশ্চিতে সকল অংশীজনের একসাথে কাজ করার উপর জোর দেন। বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে অর্থনীতি, শেয়ারবাজার এবং বিনিয়োগের ক্ষেত্রে মিউচুয়াল ফান্ড গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

বিএসইসি’র নির্বাহী পরিচালক বলেন, মিউচুয়াল ফান্ড খাতে প্রাতিষ্ঠানিক সুশাসন নিশ্চিত করে বিনিয়োগকারীদের আস্থা অর্জন করতে পারলে ও এ খাতে বিনিয়োগে আগ্রহী করতে পারলে এই খাতকে বহুগুণে বৃদ্ধি করা সম্ভব হবে। দেশের অর্থনীতিতে শেয়ারবাজারকে দৃঢ় ও শক্তিশালী অবস্থানে দেখতে চাইলে বাজারে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর সংখ্যা বৃদ্ধি করা প্রয়োজন। এক্ষেত্রে বড় ভূমিকা রাখতে সক্ষম হবে মিউচুয়াল ফান্ড।

কর্মশালায় মূল বক্তব্যে বিএসইসি’র কমিশনার ড. মিজানুর রহমান দেশের শেয়ারবাজারে বিদ্যমান মিউচুয়াল ফান্ডসমূহ এবং এই খাতের সাথে সংশ্লিষ্ট নীতি সংক্রান্ত ইস্যুগুলো এবং এই খাতের বিদ্যমান চ্যালেঞ্জগুলো ও সমাধান নিয়ে আলোচনা করেন। সাম্প্রতিক সময়ে মিউচুয়াল ফান্ডের আয়কর অব্যাহতির বিষয়টি নিয়ে পূর্ণ সমাধানে আসায় তিনি সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা জানান।

বিএসইসি’র কমিশনার বলেন, দেশে মিউচুয়াল ফান্ড খাতের সম্প্রসারণের জন্য আগামীতে সক্ষমতা বৃদ্ধি এবং বিধিবিধান ও নীতি সংশ্লিষ্ট পুনর্গঠনে কমিশন কাজ করছে। এছাড়া এই খাতে রেগুলেটরি অ্যাকশনগুলোর ক্ষেত্রে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি সমন্বিত উদ্যোগেও কাজ করবে।

সভায় এসোসিয়েশন অব অ্যাসেট ম্যানেজম্যান্ট কোম্পানিজ অ্যান্ড মিউচুয়াল ফান্ডসের (এএএমসিএমএফ) প্রেসিডেন্ট হাসান ইমাম, ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদেশের (আইসিবি) প্রাক্তন ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও এইচ এফ অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ফায়েকুজ্জামান, এএএমসিএমএফ’র সহ-সভাপতি ওয়াকার আহমেদ চৌধুরী, এএএমসিএমএফ’র সেক্রেটারি জেনারেল অরুনাংশু দত্তসহ মিউচুয়াল ফান্ড খাত সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ বক্তব্য ও মতামত উপস্থাপন করেন।