ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ১২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ফের গাজার হাসপাতালে ইসরায়েলের হামলা

  • ডেস্ক :
  • আপডেট সময় ০২:৪২ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ জানুয়ারী ২০২৪
  • 50

ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকায় আবারও হাসপাতালে হামলা চালিয়েছে ইসরায়েলি বাহিনী। গতকাল শুক্রবার গাজার খান ইউনিস এলাকার আল আমাল হাসপাতালে হামলা চালানো হয়েছে বলে জানিয়েছে ফিলিস্তিনের রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি। এ হামলায় কয়েকজন বাস্তুচ্যুত মানুষ আহত হয়েছেন।

শনিবার (২০ জানুয়ারি) এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টাস।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রেড ক্রিসেন্ট জানিয়েছে, আল আমাল হাসপাতালে বেসামরিক মানুষদের লক্ষ্য করে এবং সেইসাথে উদ্ধারকারী সংস্থার ঘাঁটিতেও হামলার কারণে বাস্তুচ্যুত মানুষজন আহত হয়েছেন।

ইসরায়েলের সামরিক বাহিনীর দাবি, খান ইউনিস শহরটি এখন হামাসের মূল ঘাঁটি। হাসপাতালে হামলার বিষয়টি তারা যাচাই করে দেখছে।

রয়টার্সের খবরে বলা হয়েছে, চলমান যুদ্ধে গাজার বেশিরভাগ হাসপাতাল বন্ধ হয়ে গেলেও দক্ষিণাঞ্চলে হাতে গোনা কয়েকটি স্বাস্থ্যকেন্দ্র এখনও পর্যন্ত পরিষেবা দিয়ে যাচ্ছে। তবে খান ইউনিস শহরের দিকে ইসরায়েলি বাহিনী এগোতে থাকায় এই হাসপাতালগুলোও হামলার শিকার হতে পারে।

গাজায় সবচেয়ে বড় হাসপাতাল হলো নাসের হাসপাতাল। খান ইউনিস শহরের নিকটবর্তী এই হাসপাতালের দিকেও ইসরায়েলি ট্যাংক এগিয়ে যাচ্ছে বলে স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন।

এদিকে গাজার স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয় গতকাল শুক্রবার এক বিবৃতিতে বলেছে, গত ৭ অক্টোবর থেকে চলমান ইসরায়েলি হামলায় এখন পর্যন্ত ২৪ হাজার ৭৬২ জন ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে। এছাড়া আহত হয়েছে আরও ৬২ হাজার ১০৮ জন।

মন্ত্রণালয় আরও জানিয়েছে, ইসরায়েলি হামলায় গত ২৪ ঘণ্টায় ১৪২ জন নিহত এবং ২৭৮ জন আহত হয়েছে।

জাতিসংঘের মতে, গাজার প্রায় ৮৫ শতাংশ বাসিন্দা ইসরায়েলি আক্রমণে বাস্তুচ্যুত হয়েছে। তাদের সবাই খাদ্য নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। হাজার হাজার মানুষ আশ্রয় ছাড়াই বসবাস করছে।

ট্যাগস

ফের গাজার হাসপাতালে ইসরায়েলের হামলা

আপডেট সময় ০২:৪২ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ জানুয়ারী ২০২৪

ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকায় আবারও হাসপাতালে হামলা চালিয়েছে ইসরায়েলি বাহিনী। গতকাল শুক্রবার গাজার খান ইউনিস এলাকার আল আমাল হাসপাতালে হামলা চালানো হয়েছে বলে জানিয়েছে ফিলিস্তিনের রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি। এ হামলায় কয়েকজন বাস্তুচ্যুত মানুষ আহত হয়েছেন।

শনিবার (২০ জানুয়ারি) এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টাস।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রেড ক্রিসেন্ট জানিয়েছে, আল আমাল হাসপাতালে বেসামরিক মানুষদের লক্ষ্য করে এবং সেইসাথে উদ্ধারকারী সংস্থার ঘাঁটিতেও হামলার কারণে বাস্তুচ্যুত মানুষজন আহত হয়েছেন।

ইসরায়েলের সামরিক বাহিনীর দাবি, খান ইউনিস শহরটি এখন হামাসের মূল ঘাঁটি। হাসপাতালে হামলার বিষয়টি তারা যাচাই করে দেখছে।

রয়টার্সের খবরে বলা হয়েছে, চলমান যুদ্ধে গাজার বেশিরভাগ হাসপাতাল বন্ধ হয়ে গেলেও দক্ষিণাঞ্চলে হাতে গোনা কয়েকটি স্বাস্থ্যকেন্দ্র এখনও পর্যন্ত পরিষেবা দিয়ে যাচ্ছে। তবে খান ইউনিস শহরের দিকে ইসরায়েলি বাহিনী এগোতে থাকায় এই হাসপাতালগুলোও হামলার শিকার হতে পারে।

গাজায় সবচেয়ে বড় হাসপাতাল হলো নাসের হাসপাতাল। খান ইউনিস শহরের নিকটবর্তী এই হাসপাতালের দিকেও ইসরায়েলি ট্যাংক এগিয়ে যাচ্ছে বলে স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন।

এদিকে গাজার স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয় গতকাল শুক্রবার এক বিবৃতিতে বলেছে, গত ৭ অক্টোবর থেকে চলমান ইসরায়েলি হামলায় এখন পর্যন্ত ২৪ হাজার ৭৬২ জন ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে। এছাড়া আহত হয়েছে আরও ৬২ হাজার ১০৮ জন।

মন্ত্রণালয় আরও জানিয়েছে, ইসরায়েলি হামলায় গত ২৪ ঘণ্টায় ১৪২ জন নিহত এবং ২৭৮ জন আহত হয়েছে।

জাতিসংঘের মতে, গাজার প্রায় ৮৫ শতাংশ বাসিন্দা ইসরায়েলি আক্রমণে বাস্তুচ্যুত হয়েছে। তাদের সবাই খাদ্য নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। হাজার হাজার মানুষ আশ্রয় ছাড়াই বসবাস করছে।