ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ১২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কম্বল বিতরণের সময় মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়লেন মেয়র

  • ডেস্ক :
  • আপডেট সময় ০৩:৫৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ জানুয়ারী ২০২৪
  • 50

নীলফামারীর জলঢাকা পৌরসভার মেয়র ইলিয়াস হোসেন বাবলু মারা গেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। শুক্রবার (১৯ জানুয়ারি) রাত ১০টা ৫০ মিনিটে জলঢাকা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬২ বছর।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, মেয়র ইলিয়াস হোসেন শুক্রবার (১৯ জানুয়ারি) দিনভর পৌর এলাকার বিভিন্ন স্থানে প্রান্তিক মানুষের খোঁজ খবর নেন ও কম্বল বিতরণ করেন। রাতে পৌরসভার সতিঘাট এলাকায় শীতার্ত মানুষের মাঝে কম্বল বিতরণ করেন তিনি। কম্বল বিতরণের সময় ঠান্ডায় কাঁপছিলেন তিনি। সেখানকার কার্যক্রম শেষে গাড়িতে ওঠার সময় মাটিতে লুটিয়ে পড়েন মেয়র ইলিয়াস। এ সময় মেয়রকে দ্রুত জলঢাকা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

মেয়র ইলিয়াসের মৃত্যুর খবরে হাসপাতালে ভিড় করেন পৌর কর্তৃপক্ষ, জলঢাকা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল ওয়াহেদ বাহাদুর, স্বজন, শুভাকাঙ্ক্ষীসহ অগণিত মানুষ। শোকের ছায়া নামে গোটা শহরে। মেয়রের পৌর শহরের বাসস্ট্যান্ডের বাড়িতে তাকে একনজরে দেখতে আসেন নীলফামারী-৩ আসনের সংসদ সদস্য সাদ্দাম হোসেন পাভেলসহ সামাজিক ও রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ।

তৃণমূল থেকে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে উঠে আসেন মেয়র ইলিয়াস হোসেন বাবলু। তিনি বিভিন্ন সামাজিক, স্বেচ্ছাসেবী ও ধর্মীয় সংগঠনের সঙ্গে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত ছিলেন। তিনি জলঢাকা পৌর আওয়ামী লীগের অন্যতম সদস্য নির্বাচিত হন। এরপর ২০০৪ সালে পৌরসভার দ্বিতীয় নির্বাচনে জলঢাকা পৌর মেয়র নির্বাচিত হন। পাঁচ বছর সফলতার সঙ্গে তিনি পৌরসভা পরিচালনা করেন। জনতার কাছে মাটি ও মানুষের নেতা হিসেবে পরিচিতি লাভ করেন। এরপর ২০২০ সালে দ্বিতীয়বার মেয়র নির্বাচিত হন মেয়র ইলিয়াস হোসেন বাবলু।

মৃত্যুকালে মেয়র ইলিয়াস হোসেন বাবলু স্ত্রী, দুই ছেলে ও এক মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। শনিবার দুপুর ২টা ৩০ মিনিটে জলঢাকা স্টেডিয়াম মাঠে প্রথম জানাজা ও বাদ আছর তার নিজ গ্রামের বাড়ি উত্তর কাজিরহাটে পারিবারিক কবরস্থানে দ্বিতীয় জানাজা শেষে দাফন সম্পন্ন হবে।

ট্যাগস

কম্বল বিতরণের সময় মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়লেন মেয়র

আপডেট সময় ০৩:৫৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ জানুয়ারী ২০২৪

নীলফামারীর জলঢাকা পৌরসভার মেয়র ইলিয়াস হোসেন বাবলু মারা গেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। শুক্রবার (১৯ জানুয়ারি) রাত ১০টা ৫০ মিনিটে জলঢাকা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬২ বছর।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, মেয়র ইলিয়াস হোসেন শুক্রবার (১৯ জানুয়ারি) দিনভর পৌর এলাকার বিভিন্ন স্থানে প্রান্তিক মানুষের খোঁজ খবর নেন ও কম্বল বিতরণ করেন। রাতে পৌরসভার সতিঘাট এলাকায় শীতার্ত মানুষের মাঝে কম্বল বিতরণ করেন তিনি। কম্বল বিতরণের সময় ঠান্ডায় কাঁপছিলেন তিনি। সেখানকার কার্যক্রম শেষে গাড়িতে ওঠার সময় মাটিতে লুটিয়ে পড়েন মেয়র ইলিয়াস। এ সময় মেয়রকে দ্রুত জলঢাকা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

মেয়র ইলিয়াসের মৃত্যুর খবরে হাসপাতালে ভিড় করেন পৌর কর্তৃপক্ষ, জলঢাকা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল ওয়াহেদ বাহাদুর, স্বজন, শুভাকাঙ্ক্ষীসহ অগণিত মানুষ। শোকের ছায়া নামে গোটা শহরে। মেয়রের পৌর শহরের বাসস্ট্যান্ডের বাড়িতে তাকে একনজরে দেখতে আসেন নীলফামারী-৩ আসনের সংসদ সদস্য সাদ্দাম হোসেন পাভেলসহ সামাজিক ও রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ।

তৃণমূল থেকে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে উঠে আসেন মেয়র ইলিয়াস হোসেন বাবলু। তিনি বিভিন্ন সামাজিক, স্বেচ্ছাসেবী ও ধর্মীয় সংগঠনের সঙ্গে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত ছিলেন। তিনি জলঢাকা পৌর আওয়ামী লীগের অন্যতম সদস্য নির্বাচিত হন। এরপর ২০০৪ সালে পৌরসভার দ্বিতীয় নির্বাচনে জলঢাকা পৌর মেয়র নির্বাচিত হন। পাঁচ বছর সফলতার সঙ্গে তিনি পৌরসভা পরিচালনা করেন। জনতার কাছে মাটি ও মানুষের নেতা হিসেবে পরিচিতি লাভ করেন। এরপর ২০২০ সালে দ্বিতীয়বার মেয়র নির্বাচিত হন মেয়র ইলিয়াস হোসেন বাবলু।

মৃত্যুকালে মেয়র ইলিয়াস হোসেন বাবলু স্ত্রী, দুই ছেলে ও এক মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। শনিবার দুপুর ২টা ৩০ মিনিটে জলঢাকা স্টেডিয়াম মাঠে প্রথম জানাজা ও বাদ আছর তার নিজ গ্রামের বাড়ি উত্তর কাজিরহাটে পারিবারিক কবরস্থানে দ্বিতীয় জানাজা শেষে দাফন সম্পন্ন হবে।