ঢাকা , বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪, ৮ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

লাস পালমাসের মাঠে খেলতে গিয়ে ২-১ গোলের ব্যবধানে জয় নিয়ে ফিরেছে লজ ব্লাঙ্কোজরা

  • ডেস্ক :
  • আপডেট সময় ১২:০৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৪
  • 95

লা লিগায় জিরোনার সঙ্গেই সবচেয়ে বড় লড়াইটা হচ্ছে রিয়াল মাদ্রিদের। শনিবার রাতে লাস পালমাসের মাঠে খেলতে গিয়ে ২-১ গোলের ব্যবধানে জয় নিয়ে ফিরেছে লজ ব্লাঙ্কোজরা। এই জয়ে স্প্যানিশ লা লিগার পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে উঠেছে তারা। ২১ ম্যাচে রিয়ালের পয়েন্ট ৫৪, সমান ম্যাচে জিরোনার পয়েন্ট ৫২।

এস্টাডিও গ্রান ক্যানারিয়ায় প্রথমার্ধে কোনো গোলই করতে পারেনি রিয়াল। দ্বিতীয়ার্ধে প্রথমে গোল হজম করে পিছিয়ে পড়ে তারা। তবে ভিনিসিয়ুস জুনিয়র এবং অরিলিয়েন চুয়ামেনির গোলে শেষ পর্যন্ত ২-১ গোলের ব্যবধানে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে রিয়াল।

বিশেষ করে সাইডনেঞ্চে থাকা ফুটবলার চুয়ামেনির গোলেই জয়টা পেয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ। আজ রাতেই অবশ্য শীর্ষস্থান আবার হারাতে পারে রিয়াল। কার জিরোনা মাঠে নামবে সেল্ট ভিগোর বিপক্ষে। জিতলেই জিরোনা উঠে যাবে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে।

মূল খেলোয়াড়দের অধিকাংশকে বাইরে রেখেই স্কোয়াড সাজিয়েছিলেন রিয়াল কোচ কার্লো আনচেলত্তি। ইংলিশ তারকা জুদ বেলিংহ্যাম মাঠে নামতে পারেননি নিষেধাজ্ঞার কারণে। আলমেরিয়ার বিপক্ষে ম্যাচে হলুদ কার্ড দেখার কারণে এই ম্যাচে খেলতে পারেননি তিনি। যে কারণে প্রথমার্ধে বেশ ভুগতে হয়েছিলো তাদের।

দ্বিতীয়ার্ধের খেলা শুরু হওয়ার ৮ মিনিটের মাথায় (৫৩তম মিনিটে) লাস পালমাসের হয়ে রিয়ালের জালে বল জড়ান জাভি মুনোজ। ৬৫ মিনিটে রিয়ালকে সমতায় ফেরান ভিনিসিয়ুস। ৮৪ মিনিটে জয়সূচক গোল করেন অরিলিয়েন চুয়ামেনি।

জয়ের পর কোচ আনচেলত্তি বলেন, ‘আমাদের সাইড বেঞ্চও যে দারুণ অবস্থায় রয়েছে এ ম্যাচ তার বড় প্রমাণ। আমাদের সাফল্যের এটা একটা উপাদান। বেঞ্চের দিকে যখন তাকাই, দেখি অনেকগুলো ভালো ভালো খেলোয়াড় বসে আছে, মাঠে নামতে পারছে না। এটাই আমাদের বড় শক্তি।’

ট্যাগস

লাস পালমাসের মাঠে খেলতে গিয়ে ২-১ গোলের ব্যবধানে জয় নিয়ে ফিরেছে লজ ব্লাঙ্কোজরা

আপডেট সময় ১২:০৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৪

লা লিগায় জিরোনার সঙ্গেই সবচেয়ে বড় লড়াইটা হচ্ছে রিয়াল মাদ্রিদের। শনিবার রাতে লাস পালমাসের মাঠে খেলতে গিয়ে ২-১ গোলের ব্যবধানে জয় নিয়ে ফিরেছে লজ ব্লাঙ্কোজরা। এই জয়ে স্প্যানিশ লা লিগার পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে উঠেছে তারা। ২১ ম্যাচে রিয়ালের পয়েন্ট ৫৪, সমান ম্যাচে জিরোনার পয়েন্ট ৫২।

এস্টাডিও গ্রান ক্যানারিয়ায় প্রথমার্ধে কোনো গোলই করতে পারেনি রিয়াল। দ্বিতীয়ার্ধে প্রথমে গোল হজম করে পিছিয়ে পড়ে তারা। তবে ভিনিসিয়ুস জুনিয়র এবং অরিলিয়েন চুয়ামেনির গোলে শেষ পর্যন্ত ২-১ গোলের ব্যবধানে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে রিয়াল।

বিশেষ করে সাইডনেঞ্চে থাকা ফুটবলার চুয়ামেনির গোলেই জয়টা পেয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ। আজ রাতেই অবশ্য শীর্ষস্থান আবার হারাতে পারে রিয়াল। কার জিরোনা মাঠে নামবে সেল্ট ভিগোর বিপক্ষে। জিতলেই জিরোনা উঠে যাবে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে।

মূল খেলোয়াড়দের অধিকাংশকে বাইরে রেখেই স্কোয়াড সাজিয়েছিলেন রিয়াল কোচ কার্লো আনচেলত্তি। ইংলিশ তারকা জুদ বেলিংহ্যাম মাঠে নামতে পারেননি নিষেধাজ্ঞার কারণে। আলমেরিয়ার বিপক্ষে ম্যাচে হলুদ কার্ড দেখার কারণে এই ম্যাচে খেলতে পারেননি তিনি। যে কারণে প্রথমার্ধে বেশ ভুগতে হয়েছিলো তাদের।

দ্বিতীয়ার্ধের খেলা শুরু হওয়ার ৮ মিনিটের মাথায় (৫৩তম মিনিটে) লাস পালমাসের হয়ে রিয়ালের জালে বল জড়ান জাভি মুনোজ। ৬৫ মিনিটে রিয়ালকে সমতায় ফেরান ভিনিসিয়ুস। ৮৪ মিনিটে জয়সূচক গোল করেন অরিলিয়েন চুয়ামেনি।

জয়ের পর কোচ আনচেলত্তি বলেন, ‘আমাদের সাইড বেঞ্চও যে দারুণ অবস্থায় রয়েছে এ ম্যাচ তার বড় প্রমাণ। আমাদের সাফল্যের এটা একটা উপাদান। বেঞ্চের দিকে যখন তাকাই, দেখি অনেকগুলো ভালো ভালো খেলোয়াড় বসে আছে, মাঠে নামতে পারছে না। এটাই আমাদের বড় শক্তি।’