ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ১২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শৈত্যপ্রবাহও দূর হয়েছে,৫ বিভাগে হালকা বৃষ্টির আভাস

  • ডেস্ক :
  • আপডেট সময় ১২:৩৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৪
  • 44

একদিনের ব্যবধানে দেশে সর্বনিম্ন বা রাতের তাপমাত্রা সর্বোচ্চ ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত বেড়ে গেছে। শীতের তীব্রতা অনেকটাই কমে গেছে। দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বয়ে যাওয়া শৈত্যপ্রবাহও দূর হয়েছে।

অন্যদিকে বৃষ্টি শুরু হয়েছে। খুলনা ও ঢাকা বিভাগের দু-এক জায়গায় বৃষ্টি হয়েছে। আগামী কয়েকদিন বৃষ্টি অব্যাহত থাকতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। বুধবার (৩১ জানুয়ারি) দেশের পাঁচ বিভাগে কম-বেশি বৃষ্টি হতে পারে বলে জানিয়েছেন আবহাওয়াবিদরা।

বুধবার সকালে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৯ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছিল পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায়। একদিন আগে যা ছিল ৭ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

ঢাকায় রাতের তাপমাত্রা ১৩ ডিগ্রি থেকে বেড়ে হয়েছে ১৭ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। গোপালগঞ্জের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৯ দশমিক ৩ থেকে বেড়ে হয়েছে ১৬ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এক্ষেত্রে রাতের তাপমাত্রা বেড়েছে ৭ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

মঙ্গলবার গোপালগঞ্জ, নওগাঁ, মৌলভীবাজার ও ফেনী জেলাসহ রংপুর বিভাগের ওপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছিলো। বুধবার দূর হয়েছে তা। বিচ্ছিন্নভাবে শুধু একটি স্টেশনে (তেঁতুলিয়ায় ৯ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস) সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে থাকায় শৈত্যপ্রবাহ ঘোষণা করেনি আবহাওয়া বিভাগ।

মঙ্গলবার সকাল ৬টা থেকে বুধবার সকাল ৬টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় খুলনা বিভাগের সাতক্ষীরায় ৩১ মিলিমিটার, যশোরে ৬ ও খুলনায় ১ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। ঢাকা বিভাগের মাদারীপুর ও গোপালগঞ্জে ১ মিলিমিটার করে বৃষ্টি হয়েছে।

আবহাওয়াবিদ মো. শাহীনুল ইসলাম জানান, খুলনা ও ঢাকা বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং রাজশাহী, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের দু’এক জায়গায় বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। এছাড়া দেশের অন্যত্র আংশিক মেঘলা আকাশসহ আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে। শেষরাত থেকে সকাল পর্যন্ত দেশের নদী অববাহিকায় মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা এবং দেশের অন্যত্র হালকা থেকে মাঝারি ধরনের কুয়াশা পড়তে পারে। ঘন কুয়াশার কারণে অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন চলাচল অস্থায়ীভাবে ব্যাহত হতে পারে। এ সময়ে সারাদেশে রাতের তাপমাত্রা সামান্য বাড়তে পারে এবং দিনের তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে বলেও জানান তিনি।

বৃহস্পতিবার খুলনা, ঢাকা, রাজশাহী, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগের দু’এক জায়গায় বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সারাদেশে রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে এবং দিনের তাপমাত্রা ১ থেকে ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস কমতে পারে।

শুক্রবার খুলনা, বরিশাল, ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং রাজশাহী, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগের দু’এক জায়গায় বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। ওইদিন সারাদেশে রাত এবং দিনের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে বলেও জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

ট্যাগস

শৈত্যপ্রবাহও দূর হয়েছে,৫ বিভাগে হালকা বৃষ্টির আভাস

আপডেট সময় ১২:৩৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৪

একদিনের ব্যবধানে দেশে সর্বনিম্ন বা রাতের তাপমাত্রা সর্বোচ্চ ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত বেড়ে গেছে। শীতের তীব্রতা অনেকটাই কমে গেছে। দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বয়ে যাওয়া শৈত্যপ্রবাহও দূর হয়েছে।

অন্যদিকে বৃষ্টি শুরু হয়েছে। খুলনা ও ঢাকা বিভাগের দু-এক জায়গায় বৃষ্টি হয়েছে। আগামী কয়েকদিন বৃষ্টি অব্যাহত থাকতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। বুধবার (৩১ জানুয়ারি) দেশের পাঁচ বিভাগে কম-বেশি বৃষ্টি হতে পারে বলে জানিয়েছেন আবহাওয়াবিদরা।

বুধবার সকালে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৯ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছিল পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায়। একদিন আগে যা ছিল ৭ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

ঢাকায় রাতের তাপমাত্রা ১৩ ডিগ্রি থেকে বেড়ে হয়েছে ১৭ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। গোপালগঞ্জের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৯ দশমিক ৩ থেকে বেড়ে হয়েছে ১৬ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এক্ষেত্রে রাতের তাপমাত্রা বেড়েছে ৭ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

মঙ্গলবার গোপালগঞ্জ, নওগাঁ, মৌলভীবাজার ও ফেনী জেলাসহ রংপুর বিভাগের ওপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছিলো। বুধবার দূর হয়েছে তা। বিচ্ছিন্নভাবে শুধু একটি স্টেশনে (তেঁতুলিয়ায় ৯ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস) সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে থাকায় শৈত্যপ্রবাহ ঘোষণা করেনি আবহাওয়া বিভাগ।

মঙ্গলবার সকাল ৬টা থেকে বুধবার সকাল ৬টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় খুলনা বিভাগের সাতক্ষীরায় ৩১ মিলিমিটার, যশোরে ৬ ও খুলনায় ১ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। ঢাকা বিভাগের মাদারীপুর ও গোপালগঞ্জে ১ মিলিমিটার করে বৃষ্টি হয়েছে।

আবহাওয়াবিদ মো. শাহীনুল ইসলাম জানান, খুলনা ও ঢাকা বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং রাজশাহী, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের দু’এক জায়গায় বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। এছাড়া দেশের অন্যত্র আংশিক মেঘলা আকাশসহ আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে। শেষরাত থেকে সকাল পর্যন্ত দেশের নদী অববাহিকায় মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা এবং দেশের অন্যত্র হালকা থেকে মাঝারি ধরনের কুয়াশা পড়তে পারে। ঘন কুয়াশার কারণে অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন চলাচল অস্থায়ীভাবে ব্যাহত হতে পারে। এ সময়ে সারাদেশে রাতের তাপমাত্রা সামান্য বাড়তে পারে এবং দিনের তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে বলেও জানান তিনি।

বৃহস্পতিবার খুলনা, ঢাকা, রাজশাহী, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগের দু’এক জায়গায় বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সারাদেশে রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে এবং দিনের তাপমাত্রা ১ থেকে ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস কমতে পারে।

শুক্রবার খুলনা, বরিশাল, ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং রাজশাহী, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগের দু’এক জায়গায় বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। ওইদিন সারাদেশে রাত এবং দিনের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে বলেও জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।