ঢাকা , রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ইন্দোনেশিয়ার বাজারে পোশাক রপ্তানি বাড়াতে সহযোগিতা চাইলো বিজিএমইএ

  • ডেস্ক :
  • আপডেট সময় ০৩:০৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • 77

ইন্দোনেশিয়ার বাজারে পোশাক রপ্তানি বাড়াতে দেশটির কাছে সহযোগিতা চেয়েছে বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতি (বিজিএমইএ)।

গুগল নিউজে ফলো করুন আরটিভি অনলাইন
মঙ্গলবার (৬ ফেব্রুয়ারি) ঢাকায় নিযুক্ত ইন্দোনেশিয়ান রাষ্ট্রদূত হেরু হারতান্তো সুবোলোর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎকালে এ সহযোগিতা চান বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান।

তিনি বলেন, পারস্পরিকভাবে লাভজনক অংশীদারত্বের সম্ভাবনার ওপর জোর দিয়ে বাংলাদেশে ম্যানমেইড টেক্সটাইল খাতে ইন্দোনেশিয়ার ব্যবসায়ীদের বিনিয়োগে উৎসাহিত করুন। সেদেশের বাজারে পোশাক রপ্তানি বাড়াতে শিল্পের আগ্রহ প্রকাশ করেন এবং এ বিষয়ে রাষ্ট্রদূতের সহযোগিতা কামনা করেন তিনি।

বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক বলেন, পোশাকের বৈচিত্র্যকরণ, বিশেষ করে ম্যানমেইড ফাইবার ব্যবহার করে উচ্চমূল্যের পোশাক উৎপাদনে মনোযোগ বাড়িয়েছে বাংলাদেশ। ইন্দোনেশিয়া থেকে সেটা আমদানি করতে পারে এ দেশ।

বিজিএমইএ ইউনিভার্সিটি অব ফ্যাশন অ্যান্ড টেকনোলজি (বিইউএফটি) এবং ইন্দোনেশিয়ান ফ্যাশন ইনস্টিটিউটের মধ্যে সহযোগিতা প্রতিষ্ঠায় রাষ্ট্রদূতকে সহযোগিতা দেওয়ার জন্য অনুরোধ করেন তিনি। যার উদ্দেশ্য হলো ফ্যাশন ডিজাইন, পণ্য উন্নয়ন, প্রযুক্তি এবং অন্যান্য প্রাসঙ্গিক ক্ষেত্রে বিইউএফটির শিক্ষার্থীদের জ্ঞান ও দক্ষতা বাড়ানো।

এ সময় পোশাক ও বস্ত্র খাতের ওপর বিশেষ জোর দিয়ে দু’দেশের মধ্যে সহযোগিতা বৃদ্ধি এবং দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য সম্পর্ক বাড়ানোর উপায় নিয়ে আলোচনা করেন তারা। আলোচনায় পারস্পারিক বাণিজ্য-সম্পর্কিত বিভিন্ন বিষয়ও অন্তর্ভুক্ত ছিল।

পারস্পরিক বাণিজ্য ও বিনিয়োগের সম্ভাবনাকে সম্পূর্ণরূপে কাজে লাগানোর জন্য একসঙ্গে কাজ করে নতুন উপায় চিহ্নিত করার বিষয়ে আগ্রহ প্রকাশ করেন দুজনই।

ট্যাগস

ইন্দোনেশিয়ার বাজারে পোশাক রপ্তানি বাড়াতে সহযোগিতা চাইলো বিজিএমইএ

আপডেট সময় ০৩:০৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

ইন্দোনেশিয়ার বাজারে পোশাক রপ্তানি বাড়াতে দেশটির কাছে সহযোগিতা চেয়েছে বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতি (বিজিএমইএ)।

গুগল নিউজে ফলো করুন আরটিভি অনলাইন
মঙ্গলবার (৬ ফেব্রুয়ারি) ঢাকায় নিযুক্ত ইন্দোনেশিয়ান রাষ্ট্রদূত হেরু হারতান্তো সুবোলোর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎকালে এ সহযোগিতা চান বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান।

তিনি বলেন, পারস্পরিকভাবে লাভজনক অংশীদারত্বের সম্ভাবনার ওপর জোর দিয়ে বাংলাদেশে ম্যানমেইড টেক্সটাইল খাতে ইন্দোনেশিয়ার ব্যবসায়ীদের বিনিয়োগে উৎসাহিত করুন। সেদেশের বাজারে পোশাক রপ্তানি বাড়াতে শিল্পের আগ্রহ প্রকাশ করেন এবং এ বিষয়ে রাষ্ট্রদূতের সহযোগিতা কামনা করেন তিনি।

বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক বলেন, পোশাকের বৈচিত্র্যকরণ, বিশেষ করে ম্যানমেইড ফাইবার ব্যবহার করে উচ্চমূল্যের পোশাক উৎপাদনে মনোযোগ বাড়িয়েছে বাংলাদেশ। ইন্দোনেশিয়া থেকে সেটা আমদানি করতে পারে এ দেশ।

বিজিএমইএ ইউনিভার্সিটি অব ফ্যাশন অ্যান্ড টেকনোলজি (বিইউএফটি) এবং ইন্দোনেশিয়ান ফ্যাশন ইনস্টিটিউটের মধ্যে সহযোগিতা প্রতিষ্ঠায় রাষ্ট্রদূতকে সহযোগিতা দেওয়ার জন্য অনুরোধ করেন তিনি। যার উদ্দেশ্য হলো ফ্যাশন ডিজাইন, পণ্য উন্নয়ন, প্রযুক্তি এবং অন্যান্য প্রাসঙ্গিক ক্ষেত্রে বিইউএফটির শিক্ষার্থীদের জ্ঞান ও দক্ষতা বাড়ানো।

এ সময় পোশাক ও বস্ত্র খাতের ওপর বিশেষ জোর দিয়ে দু’দেশের মধ্যে সহযোগিতা বৃদ্ধি এবং দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য সম্পর্ক বাড়ানোর উপায় নিয়ে আলোচনা করেন তারা। আলোচনায় পারস্পারিক বাণিজ্য-সম্পর্কিত বিভিন্ন বিষয়ও অন্তর্ভুক্ত ছিল।

পারস্পরিক বাণিজ্য ও বিনিয়োগের সম্ভাবনাকে সম্পূর্ণরূপে কাজে লাগানোর জন্য একসঙ্গে কাজ করে নতুন উপায় চিহ্নিত করার বিষয়ে আগ্রহ প্রকাশ করেন দুজনই।