ঢাকা , রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মানিকগঞ্জে ৫ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত

  • ডেস্ক :
  • আপডেট সময় ০১:৪৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৩ মার্চ ২০২৪
  • 59

মানিকগঞ্জে সোনা চোরাচালান মামলায় ৫ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একইসঙ্গে আসামিদের প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে।

বুধবার (১৩ মার্চ) দুপুরে মানিকগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক জয়শ্রী সমাদ্দার আসামিদের উপস্থিতিতে এই রায় ঘোষণা করেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন, সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার ইয়াহিয়া আমিন, যশোরের ঝিকরগাছার আমিনুর রহমান, মুন্সিগঞ্জের লৌহজং উপজেলার মনিরুজ্জামান রনি, ঢাকার এলিফ্যান্ট রোডের জাহিদুল ইসলাম ও জহিুরুল ইসলাম।

রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মথুর নাথ সরকার।

মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণে জানা গেছে, ২০১৮ সালের ৪ অক্টোবর আসামিরা ধানমন্ডির শংকর বাসস্ট্যান্ড থেকে একটি বাসে যাত্রীবেশে প্রায় ৪৪ কেজি সোনা পাচারের উদ্দেশে বেনাপোল যাচ্ছিলেন। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র্যাব-২ এই খবর পাওয়ার পর মানিকগঞ্জ সদর থানা পুলিশের সহায়তায় ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের তরা এলাকায় চেকপোস্ট বসায়। এ সময় বাস থেকে নেমে আসামিরা দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করেন।

পরে তাদেরকে র্যাব ও পুলিশ আটকের পর দেহ তল্লাশি করে ২২৭টি সোনার বার উদ্ধার করে। যার ওজন প্রায় ৪৪ কেজি।

এ ঘটনায় সদর থানায় মামলা হলে পুলিশ তদন্ত শেষে আসামিদের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয়। আদালত এই মামলায় ১৫ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ করেন।

চোরাচালান মামলায় সর্বোচ্চ শাস্তি যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হওয়ায় সন্তোষ জানিয়েছেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মথুর নাথ সরকার। তবে এই রায়ে অসন্তোষ জানিয়েন আসামিপক্ষের আইনজীবী নজরুল ইসলাম বাদশা। তিনি রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করার কথা জানিয়েছেন।

ট্যাগস

মানিকগঞ্জে ৫ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত

আপডেট সময় ০১:৪৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৩ মার্চ ২০২৪

মানিকগঞ্জে সোনা চোরাচালান মামলায় ৫ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একইসঙ্গে আসামিদের প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে।

বুধবার (১৩ মার্চ) দুপুরে মানিকগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক জয়শ্রী সমাদ্দার আসামিদের উপস্থিতিতে এই রায় ঘোষণা করেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন, সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার ইয়াহিয়া আমিন, যশোরের ঝিকরগাছার আমিনুর রহমান, মুন্সিগঞ্জের লৌহজং উপজেলার মনিরুজ্জামান রনি, ঢাকার এলিফ্যান্ট রোডের জাহিদুল ইসলাম ও জহিুরুল ইসলাম।

রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মথুর নাথ সরকার।

মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণে জানা গেছে, ২০১৮ সালের ৪ অক্টোবর আসামিরা ধানমন্ডির শংকর বাসস্ট্যান্ড থেকে একটি বাসে যাত্রীবেশে প্রায় ৪৪ কেজি সোনা পাচারের উদ্দেশে বেনাপোল যাচ্ছিলেন। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র্যাব-২ এই খবর পাওয়ার পর মানিকগঞ্জ সদর থানা পুলিশের সহায়তায় ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের তরা এলাকায় চেকপোস্ট বসায়। এ সময় বাস থেকে নেমে আসামিরা দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করেন।

পরে তাদেরকে র্যাব ও পুলিশ আটকের পর দেহ তল্লাশি করে ২২৭টি সোনার বার উদ্ধার করে। যার ওজন প্রায় ৪৪ কেজি।

এ ঘটনায় সদর থানায় মামলা হলে পুলিশ তদন্ত শেষে আসামিদের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয়। আদালত এই মামলায় ১৫ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ করেন।

চোরাচালান মামলায় সর্বোচ্চ শাস্তি যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হওয়ায় সন্তোষ জানিয়েছেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মথুর নাথ সরকার। তবে এই রায়ে অসন্তোষ জানিয়েন আসামিপক্ষের আইনজীবী নজরুল ইসলাম বাদশা। তিনি রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করার কথা জানিয়েছেন।