ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ১২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রোববার টুঙ্গিপাড়া যাচ্ছেন রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী

  • ডেস্ক :
  • আপডেট সময় ০৩:০৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৬ মার্চ ২০২৪
  • 26

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০৪ তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবসের বিভিন্ন কর্মসূচিতে অংশ নিতে রোববার (১৭ মার্চ) গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় যাবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এদিন রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিনও বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধা জানাবেন। এ উপলক্ষে শিশু সমাবেশ, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ টুঙ্গিপাড়ায় সমাধিসৌধ কমপ্লেক্সে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা ও শোভাবর্ধণ এবং বই মেলার আয়োজনের সকল প্রস্তুতি শেষ হয়েছে। টুঙ্গিপাড়াসহ জেলায় নেওয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

জানা গেছে, রোববার সকালে হেলিকপ্টার যোগে টুঙ্গিপাড়া পৌঁছাবেন রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এসময় রাষ্ট্রপতিকে স্বাগত জানাবেন প্রধানমন্ত্রী। পরে জাতির পিতার ১০৪ তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবসে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রথমে রাষ্ট্রপতি ও পরে প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধের বেদিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানাবেন। এ সময় তিন বাহিনীর একটি চৌকস দল গার্ড অব অনার প্রদান করবে, বেজে উঠবে বিউগলের সুর। বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের শহীদ সদস্য এবং মহান মুক্তিযুদ্ধে আত্মদানকারী বীর শহীদদের রুহের মাগফিরাত কামনায় বিশেষ দোয়া ও মোনাজাত করবেন। পরে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু ভবনে রক্ষিত মন্তব্য বহিতে মন্তব্য লিখে স্বাক্ষর করবেন।

শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে পরে রাষ্ট্রপতি ফিরে গেলে সমাধিসৌধ কমপ্লেক্সের ১ নম্বর গেটে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে ও জেলা প্রশাসনের আয়োজনে অনুষ্ঠিত শিশু সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থাকবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

জেলা শহরের মালেকা একাডেমির ৩য় শ্রেণীর শিক্ষার্থী পিয়াসা জামিন এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত শিশু সমাবেশে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব নাজমা মোবারক, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী সিমিন হোসেন রিমি বক্তব্য রাখবেন। এরপর সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগীতার পুরস্কার, অস্বচ্ছল, মেধাবী শিশু শিক্ষার্থীদের মাঝে অর্থিক অনুদান বিতরণ করবেন এবং প্রধানমন্ত্রীকে স্মারক উপহার দেওয়া হবে। এরপর প্রধানন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখবেন।

এরপর প্রধানমন্ত্রী দর্শক সারিতে বসে শিশুদের পরিবেশনায় অনুষ্ঠিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করবেন এবং শিশুদের সাথে ফটোসেশন করবেন। এরপর জাতির পিতার সমাধি প্রাঙ্গণে আয়োজিত বই মেলা ও সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের আঁকা চিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধন করবেন।

এদিকে, রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে কেন্দ্র করে সমাধিসৌধ কমপ্লেক্সে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা ও শোভাবর্ধন এবং শিশু সমাবেশের মঞ্চ এবং সকল আয়োজনের প্রস্তুতি শেষ হয়েছে। এ সমাবেশে ক্ষুদে শিল্পীরা নাচ, গান ও কবিতা আবৃত্তি করবে। রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে কেন্দ্র করে টুঙ্গিপাড়াসহ পুরো জেলায় বইছে সাজ সাজ রব। জেলার বিভিন্ন স্থানে টাঙানো হয়েছে ব্যানার, ফেস্টুন ও নির্মাণ করা হয়েছে তোরণ। জাতীয় কর্মসূচির সঙ্গে জেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে নেওয়া হয়েছে নানা কর্মসূচি।

গোপালগঞ্জে সংযুক্তি কালচারাল কর্মকর্তা মামুন বিন সালেহ জানান, বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উপলক্ষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের সকল প্রস্তুতি শেষ হয়েছে। এ অনুষ্ঠানে ৪টি নৃত্য, ২টি সংগীত ও ১টি আবৃত্তি রয়েছে। জেলার এসব ক্ষুদে শিল্পীদের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠানটি প্রাণবন্ত হয়ে উঠবে।

টুঙ্গিপাড়া পৌরসভা পৌর মেয়র শেখ তোজাম্মেল হক টুটুল জানান, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০৪তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবসের বিভিন্ন কর্মসূচিতে অংশ নিতে টুঙ্গিপাড়ায় রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী আসবেন। তাদের আগমনকে কেন্দ্র করে টুঙ্গিপাড়ায় সকল প্রস্তুতি শেষ হয়েছে। এখন আমরা অপেক্ষায় রয়েছি কখন রাষ্ট্রপতিকে সাথে নিয়ে ঘরের মেয়ে শেখ হাসিনা টুঙ্গিপাড়ায় পৌঁছবেন।

টুঙ্গিপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. বাবুল শেখ জানান, প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে অধীর আগ্রহে রয়েছেন নেতাকর্মীরা।

গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জি এম সাহাব উদ্দিন আজম বলেন, প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে কেন্দ্র করে রাষ্ট্রীয় কর্মসূচির সাথে সাথে জেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা জানিয়ে ঢাকা-খুলনা মহাসড়ক ও গোপালগঞ্জে টুঙ্গিপাড়া সড়কের বিভিন্ন স্থানে তোরণ নির্মাণ করা হয়েছে। টাঙানো হয়েছে ব্যানার ও ফেস্টুন।

জেলা প্রশাসক কাজী মাহবুবুল আলম জানান, রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে কেন্দ্র করে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে নিরাপদ করতে জেলায় নেওয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

ট্যাগস

রোববার টুঙ্গিপাড়া যাচ্ছেন রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী

আপডেট সময় ০৩:০৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৬ মার্চ ২০২৪

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০৪ তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবসের বিভিন্ন কর্মসূচিতে অংশ নিতে রোববার (১৭ মার্চ) গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় যাবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এদিন রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিনও বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধা জানাবেন। এ উপলক্ষে শিশু সমাবেশ, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ টুঙ্গিপাড়ায় সমাধিসৌধ কমপ্লেক্সে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা ও শোভাবর্ধণ এবং বই মেলার আয়োজনের সকল প্রস্তুতি শেষ হয়েছে। টুঙ্গিপাড়াসহ জেলায় নেওয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

জানা গেছে, রোববার সকালে হেলিকপ্টার যোগে টুঙ্গিপাড়া পৌঁছাবেন রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এসময় রাষ্ট্রপতিকে স্বাগত জানাবেন প্রধানমন্ত্রী। পরে জাতির পিতার ১০৪ তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবসে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রথমে রাষ্ট্রপতি ও পরে প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধের বেদিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানাবেন। এ সময় তিন বাহিনীর একটি চৌকস দল গার্ড অব অনার প্রদান করবে, বেজে উঠবে বিউগলের সুর। বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের শহীদ সদস্য এবং মহান মুক্তিযুদ্ধে আত্মদানকারী বীর শহীদদের রুহের মাগফিরাত কামনায় বিশেষ দোয়া ও মোনাজাত করবেন। পরে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু ভবনে রক্ষিত মন্তব্য বহিতে মন্তব্য লিখে স্বাক্ষর করবেন।

শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে পরে রাষ্ট্রপতি ফিরে গেলে সমাধিসৌধ কমপ্লেক্সের ১ নম্বর গেটে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে ও জেলা প্রশাসনের আয়োজনে অনুষ্ঠিত শিশু সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থাকবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

জেলা শহরের মালেকা একাডেমির ৩য় শ্রেণীর শিক্ষার্থী পিয়াসা জামিন এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত শিশু সমাবেশে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব নাজমা মোবারক, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী সিমিন হোসেন রিমি বক্তব্য রাখবেন। এরপর সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগীতার পুরস্কার, অস্বচ্ছল, মেধাবী শিশু শিক্ষার্থীদের মাঝে অর্থিক অনুদান বিতরণ করবেন এবং প্রধানমন্ত্রীকে স্মারক উপহার দেওয়া হবে। এরপর প্রধানন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখবেন।

এরপর প্রধানমন্ত্রী দর্শক সারিতে বসে শিশুদের পরিবেশনায় অনুষ্ঠিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করবেন এবং শিশুদের সাথে ফটোসেশন করবেন। এরপর জাতির পিতার সমাধি প্রাঙ্গণে আয়োজিত বই মেলা ও সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের আঁকা চিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধন করবেন।

এদিকে, রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে কেন্দ্র করে সমাধিসৌধ কমপ্লেক্সে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা ও শোভাবর্ধন এবং শিশু সমাবেশের মঞ্চ এবং সকল আয়োজনের প্রস্তুতি শেষ হয়েছে। এ সমাবেশে ক্ষুদে শিল্পীরা নাচ, গান ও কবিতা আবৃত্তি করবে। রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে কেন্দ্র করে টুঙ্গিপাড়াসহ পুরো জেলায় বইছে সাজ সাজ রব। জেলার বিভিন্ন স্থানে টাঙানো হয়েছে ব্যানার, ফেস্টুন ও নির্মাণ করা হয়েছে তোরণ। জাতীয় কর্মসূচির সঙ্গে জেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে নেওয়া হয়েছে নানা কর্মসূচি।

গোপালগঞ্জে সংযুক্তি কালচারাল কর্মকর্তা মামুন বিন সালেহ জানান, বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উপলক্ষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের সকল প্রস্তুতি শেষ হয়েছে। এ অনুষ্ঠানে ৪টি নৃত্য, ২টি সংগীত ও ১টি আবৃত্তি রয়েছে। জেলার এসব ক্ষুদে শিল্পীদের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠানটি প্রাণবন্ত হয়ে উঠবে।

টুঙ্গিপাড়া পৌরসভা পৌর মেয়র শেখ তোজাম্মেল হক টুটুল জানান, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০৪তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবসের বিভিন্ন কর্মসূচিতে অংশ নিতে টুঙ্গিপাড়ায় রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী আসবেন। তাদের আগমনকে কেন্দ্র করে টুঙ্গিপাড়ায় সকল প্রস্তুতি শেষ হয়েছে। এখন আমরা অপেক্ষায় রয়েছি কখন রাষ্ট্রপতিকে সাথে নিয়ে ঘরের মেয়ে শেখ হাসিনা টুঙ্গিপাড়ায় পৌঁছবেন।

টুঙ্গিপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. বাবুল শেখ জানান, প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে অধীর আগ্রহে রয়েছেন নেতাকর্মীরা।

গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জি এম সাহাব উদ্দিন আজম বলেন, প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে কেন্দ্র করে রাষ্ট্রীয় কর্মসূচির সাথে সাথে জেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা জানিয়ে ঢাকা-খুলনা মহাসড়ক ও গোপালগঞ্জে টুঙ্গিপাড়া সড়কের বিভিন্ন স্থানে তোরণ নির্মাণ করা হয়েছে। টাঙানো হয়েছে ব্যানার ও ফেস্টুন।

জেলা প্রশাসক কাজী মাহবুবুল আলম জানান, রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে কেন্দ্র করে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে নিরাপদ করতে জেলায় নেওয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা।