ঢাকা , শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নারীদের অংশগ্রহণে পুঁজিবাজার আরও শক্ত অবস্থানে যাবে– ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী

  • ডেস্ক :
  • আপডেট সময় ১১:০৯ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪
  • 28

বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেছেন, দেশের পুঁজিবাজারে আরও বেশি ভূমিকা রাখার সুযোগ আছে নারীদের। নারীদের অংশগ্রহণে পুঁজিবাজার আরও শক্ত অবস্থানে যাবে। পুঁজিবাজারে নারীদের অংশগ্রহণ অধিকতর করার লক্ষ্যে আজকের যে অনুষ্ঠান এজন্য আমি বিএসইসিকে অভিনন্দন জানাই।

বুধবার (২২ মে) সন্ধ্যায় রাজধানীর একটি অভিজাত হোটেলে পুঁজিবাজারে নারী ও স্বাধীনতা সুবর্ণজয়ন্তী পুরস্কার ২০২৩ শীর্ষক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিএসইসি চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন অর্থ প্রতিমন্ত্রী ওয়াসিকা আয়শা খান, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব আব্দুর রহমান খান। স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিএসইসি কমিশনার ড. শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ আর ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন কমিশনার ড. রুমানা ইসলাম।

স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, বাংলাদেশ নারীর ক্ষমতায়নে আজ বিশ্বের রোল মডেল। প্রধানমন্ত্রী ও সরকারের নেয়া বিভিন্ন উদ্যোগের ফলেই আজ বাংলাদেশ শীর্ষে অবস্থান করছে। ক্ষমতায়ন একটি সামাজিক বিষয়। অর্থনৈতিক ক্ষমতায়নে নারীরা সম্পৃক্ত রয়েছেন। বাংলাদেশের শ্রম বাজারের নারীদের অংশগ্রহণ রয়েছে। এছাড়া আরএমজি সেক্টরে নারীদের বিশাল অংশগ্রহণ রয়েছে। এছাড়া দেশের প্রত্যেকটি সেক্টরে আমাদের নারীরা বিভিন্ন পদে প্রশংসনীয় ভূমিকা পালন করছেন।

তিনি বলেন, পুঁজিবাজারে নারীদের সেভাবে অংশগ্রহণ বাড়াতে পারিনি। শতকরা ২৪ ভাগ নারীদের অংশগ্রহণ পুঁজিবাজারে৷ ২০০৭ সালে যা সাড়ে ৭ লাখ ছিল তা কমে ৪ লাখের কাছাকাছি নেমে এসেছে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে নারীদের পুঁজিবাজারে অংশগ্রহণ অনেক বেশি। তাই এই বিষয়টিকে নিয়ে এনালাইসিস করার সুযোগ আছে। তাই আমি মনে করি যেহেতু নারীরা প্রতিটি খাতে নারীরা ভূমিকা রাখছে, সেহেতু পুঁজিবাজারেও নারীরা আরও ভালো ভূমিকা রাখতে পারবে। এর মাধ্যমে নারীর অর্থনৈতিক ক্ষমতায়নের বিষয়টিও অনেক বেশি শক্ত হবে।

অর্থ প্রতিমন্ত্রী ওয়াসিকা আয়শা খান বলেন, পুঁজিবাজার দেশের অর্থনীতির জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ অংশ। পুঁজিবাজারের উন্নয়নে ১৯৭২ সালে দেশের অর্থনীতিকে পুনরূদ্ধার করার জন্য বেশ কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন ডিজিটাল বাংলাদেশ না হলে আমাদের ট্রানজেকশনগুলো হতো না।

অর্থ প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমাদের প্রধানমন্ত্রী প্রযুক্তিগত দিকে অনেক মনোযোগ দিয়েছেন। অনলাইন ট্রেডিং সিস্টেম থেকে শুরু করে বিভিন্ন প্রযুক্তিগত উন্নয়ন আমাদের পুঁজিবাজারে হয়েছে। সিডিবিএলে নারীদের বিও অ্যাকাউন্টের সংখ্যা অনেক কম। নারীরা ঘরের বাইরে সর্বত্র এগিয়ে। নারীরা বাস্তবিক। তারা মাল্টি টাস্কিং করতে পারেন। সংসার চালান পাশাপাশি অন্যান্য বিষয়গুলোও তারা দেখভাল করে থাকেন।

আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব আব্দুর রহমান খান বলেন, আমাদের স্টক মার্কেটে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ কম হবার কারণ হচ্ছে যেসব কোম্পানি বাজারে এসেছে সেগুলো ভালো পারফর্ম করতে পারেনি। আমরা যারা সুযোগ দিয়েছি যেসব কোম্পানিকে সেগুলোকে আমরা সহনীয় হয়ে সুযোগ দিয়েছি। সেক্ষেত্রে সম্পূর্ণ রুলস মেনে সিদ্ধান্তগুলো নিতে হবে। এই কাজটি শুরু করতে হবে খুব তাড়াতাড়ি। যেগুলো কোম্পানি অনেকগুলোর শেয়ার ১০ টাকার গুলো ৫ টাকায় নেমে আছে। যেসব ভালো কোম্পানি ভালো ব্যবসা করে বিনিয়োগকারীদের লভ্যাংশ দিচ্ছে তাদের শেয়ারের দাম কিন্তু কমছে না। তাই আমাদের কোম্পানি অনুমোদন দেওয়ার আগে বুঝেশুনে সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

সচিব বলেন, বিএসইসি বিনিয়োগকারীদের কাস্টডিয়ান। আপনাকে যদি আস্থাযোগ্য কাস্টডিয়ান হতে হয় তাহলে বিনিয়োগকারীদের আপনাদের ওপর আস্থা থাকতে হবে। মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগ করলে লস নেই। কারণ যেসব প্রতিষ্ঠান মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগ করেন তারা অনেক দক্ষ।

ট্যাগস

নারীদের অংশগ্রহণে পুঁজিবাজার আরও শক্ত অবস্থানে যাবে– ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী

আপডেট সময় ১১:০৯ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪

বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেছেন, দেশের পুঁজিবাজারে আরও বেশি ভূমিকা রাখার সুযোগ আছে নারীদের। নারীদের অংশগ্রহণে পুঁজিবাজার আরও শক্ত অবস্থানে যাবে। পুঁজিবাজারে নারীদের অংশগ্রহণ অধিকতর করার লক্ষ্যে আজকের যে অনুষ্ঠান এজন্য আমি বিএসইসিকে অভিনন্দন জানাই।

বুধবার (২২ মে) সন্ধ্যায় রাজধানীর একটি অভিজাত হোটেলে পুঁজিবাজারে নারী ও স্বাধীনতা সুবর্ণজয়ন্তী পুরস্কার ২০২৩ শীর্ষক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিএসইসি চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন অর্থ প্রতিমন্ত্রী ওয়াসিকা আয়শা খান, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব আব্দুর রহমান খান। স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিএসইসি কমিশনার ড. শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ আর ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন কমিশনার ড. রুমানা ইসলাম।

স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, বাংলাদেশ নারীর ক্ষমতায়নে আজ বিশ্বের রোল মডেল। প্রধানমন্ত্রী ও সরকারের নেয়া বিভিন্ন উদ্যোগের ফলেই আজ বাংলাদেশ শীর্ষে অবস্থান করছে। ক্ষমতায়ন একটি সামাজিক বিষয়। অর্থনৈতিক ক্ষমতায়নে নারীরা সম্পৃক্ত রয়েছেন। বাংলাদেশের শ্রম বাজারের নারীদের অংশগ্রহণ রয়েছে। এছাড়া আরএমজি সেক্টরে নারীদের বিশাল অংশগ্রহণ রয়েছে। এছাড়া দেশের প্রত্যেকটি সেক্টরে আমাদের নারীরা বিভিন্ন পদে প্রশংসনীয় ভূমিকা পালন করছেন।

তিনি বলেন, পুঁজিবাজারে নারীদের সেভাবে অংশগ্রহণ বাড়াতে পারিনি। শতকরা ২৪ ভাগ নারীদের অংশগ্রহণ পুঁজিবাজারে৷ ২০০৭ সালে যা সাড়ে ৭ লাখ ছিল তা কমে ৪ লাখের কাছাকাছি নেমে এসেছে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে নারীদের পুঁজিবাজারে অংশগ্রহণ অনেক বেশি। তাই এই বিষয়টিকে নিয়ে এনালাইসিস করার সুযোগ আছে। তাই আমি মনে করি যেহেতু নারীরা প্রতিটি খাতে নারীরা ভূমিকা রাখছে, সেহেতু পুঁজিবাজারেও নারীরা আরও ভালো ভূমিকা রাখতে পারবে। এর মাধ্যমে নারীর অর্থনৈতিক ক্ষমতায়নের বিষয়টিও অনেক বেশি শক্ত হবে।

অর্থ প্রতিমন্ত্রী ওয়াসিকা আয়শা খান বলেন, পুঁজিবাজার দেশের অর্থনীতির জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ অংশ। পুঁজিবাজারের উন্নয়নে ১৯৭২ সালে দেশের অর্থনীতিকে পুনরূদ্ধার করার জন্য বেশ কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন ডিজিটাল বাংলাদেশ না হলে আমাদের ট্রানজেকশনগুলো হতো না।

অর্থ প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমাদের প্রধানমন্ত্রী প্রযুক্তিগত দিকে অনেক মনোযোগ দিয়েছেন। অনলাইন ট্রেডিং সিস্টেম থেকে শুরু করে বিভিন্ন প্রযুক্তিগত উন্নয়ন আমাদের পুঁজিবাজারে হয়েছে। সিডিবিএলে নারীদের বিও অ্যাকাউন্টের সংখ্যা অনেক কম। নারীরা ঘরের বাইরে সর্বত্র এগিয়ে। নারীরা বাস্তবিক। তারা মাল্টি টাস্কিং করতে পারেন। সংসার চালান পাশাপাশি অন্যান্য বিষয়গুলোও তারা দেখভাল করে থাকেন।

আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব আব্দুর রহমান খান বলেন, আমাদের স্টক মার্কেটে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ কম হবার কারণ হচ্ছে যেসব কোম্পানি বাজারে এসেছে সেগুলো ভালো পারফর্ম করতে পারেনি। আমরা যারা সুযোগ দিয়েছি যেসব কোম্পানিকে সেগুলোকে আমরা সহনীয় হয়ে সুযোগ দিয়েছি। সেক্ষেত্রে সম্পূর্ণ রুলস মেনে সিদ্ধান্তগুলো নিতে হবে। এই কাজটি শুরু করতে হবে খুব তাড়াতাড়ি। যেগুলো কোম্পানি অনেকগুলোর শেয়ার ১০ টাকার গুলো ৫ টাকায় নেমে আছে। যেসব ভালো কোম্পানি ভালো ব্যবসা করে বিনিয়োগকারীদের লভ্যাংশ দিচ্ছে তাদের শেয়ারের দাম কিন্তু কমছে না। তাই আমাদের কোম্পানি অনুমোদন দেওয়ার আগে বুঝেশুনে সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

সচিব বলেন, বিএসইসি বিনিয়োগকারীদের কাস্টডিয়ান। আপনাকে যদি আস্থাযোগ্য কাস্টডিয়ান হতে হয় তাহলে বিনিয়োগকারীদের আপনাদের ওপর আস্থা থাকতে হবে। মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগ করলে লস নেই। কারণ যেসব প্রতিষ্ঠান মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগ করেন তারা অনেক দক্ষ।