ঢাকা , শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কিউএস র‌্যাংকিংয়ে স্থান পায়নি বাংলাদেশের কোনো বিশ্ববিদ্যালয়

  • ডেস্ক :
  • আপডেট সময় ০১:৫৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪
  • 23

যুক্তরাজ্যভিত্তিক কোয়াককোয়ারেলি সায়মন্ডস (কিউএস) ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড র‌্যাংকিংয়ে জায়গা পায়নি বাংলাদেশের কোনো বিশ্ববিদ্যালয়। বুধবার (২২ মে) প্রথমবারের মতো এক্সিকিউটিভ এমবিএ প্রোগ্রাম ও এমবিএ অ্যান্ড মাস্টার্স প্রোগ্রাম—এ দুটি ক্যাটাগরিতে র‌্যাংকিং প্রকাশ করেছে শিক্ষা ও গবেষণা সংস্থাটি।

প্রকাশিত র‌্যাংকিংয়ে দেখা গেছে, এক্সিকিউটিভ এমবিএ প্রোগ্রামে বিশ্বের ২১টি বিশ্ববিদ্যালয় স্থান পেয়েছে। এর মধ্যে শীর্ষে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের জর্জিয়া ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি। সব সূচক মিলিয়ে মোট স্কোর ১০০-এর মধ্যে ১০০ পেয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়টি।

এক্সিকিউটিভ এমবিএ প্রোগ্রামে র‌্যাংকিংয়ে শীর্ষ ১০টি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে চারটি যুক্তরাজ্যের, চারটি যুক্তরাষ্ট্রের এবং সিঙ্গাপুর ও পেরুর একটি করে বিশ্ববিদ্যালয় স্থান পেয়েছে। তালিকায় এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে শুধুমাত্র তাইওয়ানের একটি বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে।

অন্যদিকে এমবিএ অ্যান্ড মাস্টার্স প্রোগ্রামে বিশ্বের ৭৩টি বিশ্ববিদ্যালয় স্থান পেয়েছে। যার মধ্যে শীর্ষস্থানে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের অ্যারিজোনা স্টেট ইউনিভার্সিটি। এ বিশ্ববিদ্যালয়টিও সব সূচক মিলিয়ে মোট স্কোর ১০০-এর মধ্যে ১০০ পেয়েছে। এ তালিকায় কানাডার একটি, যুক্তরাষ্ট্রের তিনটি, নিউজিল্যান্ডের একটি, স্পেনের একটি, যুক্তরাজ্যের একটি, ইতালির একটি করে বিশ্ববিদ্যালয়ে রয়েছে।

এমবিএ অ্যান্ড মাস্টার্স প্রোগ্রাম ক্যাটাগরির তালিকায় এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে চীনের দুটি, ভারতের দুটি, হংকংয়ের একটি এবং ইন্দোনেশিয়ার একটি বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে।

আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত কিউএস র‌্যাংকিং- ২০০৪ সাল থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত যুক্তরাজ্যভিত্তিক শিক্ষা সাময়িকী টাইমস হায়ার এডুকেশনের সঙ্গে যৌথভাবে ‘সেরা বিশ্ববিদ্যালয়ের’ তালিকা প্রকাশ করেছিল। ২০১০ সালে আলাদা হয়ে যায় কিউএস। এরপর থেকে এককভাবেই র‌্যাংকিং প্রকাশ করে আসছে সংস্থাটি।

কিউএস বছরের বিভিন্ন সময়ে ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি র‌্যাংকিং, ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি র‌্যাংকিং বাই সাবজেক্ট, ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি র‌্যাংকিং রিজিয়নসহ একাধিক র‌্যাংকিং, প্রকাশ করে থাকে। কিউএসের প্রকাশিত সেরা বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকাকে বিশ্বব্যাপী সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য র‌্যাংকিংগুলোর মধ্যে একটি মনে করা হয়।

ট্যাগস

কিউএস র‌্যাংকিংয়ে স্থান পায়নি বাংলাদেশের কোনো বিশ্ববিদ্যালয়

আপডেট সময় ০১:৫৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪

যুক্তরাজ্যভিত্তিক কোয়াককোয়ারেলি সায়মন্ডস (কিউএস) ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড র‌্যাংকিংয়ে জায়গা পায়নি বাংলাদেশের কোনো বিশ্ববিদ্যালয়। বুধবার (২২ মে) প্রথমবারের মতো এক্সিকিউটিভ এমবিএ প্রোগ্রাম ও এমবিএ অ্যান্ড মাস্টার্স প্রোগ্রাম—এ দুটি ক্যাটাগরিতে র‌্যাংকিং প্রকাশ করেছে শিক্ষা ও গবেষণা সংস্থাটি।

প্রকাশিত র‌্যাংকিংয়ে দেখা গেছে, এক্সিকিউটিভ এমবিএ প্রোগ্রামে বিশ্বের ২১টি বিশ্ববিদ্যালয় স্থান পেয়েছে। এর মধ্যে শীর্ষে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের জর্জিয়া ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি। সব সূচক মিলিয়ে মোট স্কোর ১০০-এর মধ্যে ১০০ পেয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়টি।

এক্সিকিউটিভ এমবিএ প্রোগ্রামে র‌্যাংকিংয়ে শীর্ষ ১০টি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে চারটি যুক্তরাজ্যের, চারটি যুক্তরাষ্ট্রের এবং সিঙ্গাপুর ও পেরুর একটি করে বিশ্ববিদ্যালয় স্থান পেয়েছে। তালিকায় এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে শুধুমাত্র তাইওয়ানের একটি বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে।

অন্যদিকে এমবিএ অ্যান্ড মাস্টার্স প্রোগ্রামে বিশ্বের ৭৩টি বিশ্ববিদ্যালয় স্থান পেয়েছে। যার মধ্যে শীর্ষস্থানে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের অ্যারিজোনা স্টেট ইউনিভার্সিটি। এ বিশ্ববিদ্যালয়টিও সব সূচক মিলিয়ে মোট স্কোর ১০০-এর মধ্যে ১০০ পেয়েছে। এ তালিকায় কানাডার একটি, যুক্তরাষ্ট্রের তিনটি, নিউজিল্যান্ডের একটি, স্পেনের একটি, যুক্তরাজ্যের একটি, ইতালির একটি করে বিশ্ববিদ্যালয়ে রয়েছে।

এমবিএ অ্যান্ড মাস্টার্স প্রোগ্রাম ক্যাটাগরির তালিকায় এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে চীনের দুটি, ভারতের দুটি, হংকংয়ের একটি এবং ইন্দোনেশিয়ার একটি বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে।

আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত কিউএস র‌্যাংকিং- ২০০৪ সাল থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত যুক্তরাজ্যভিত্তিক শিক্ষা সাময়িকী টাইমস হায়ার এডুকেশনের সঙ্গে যৌথভাবে ‘সেরা বিশ্ববিদ্যালয়ের’ তালিকা প্রকাশ করেছিল। ২০১০ সালে আলাদা হয়ে যায় কিউএস। এরপর থেকে এককভাবেই র‌্যাংকিং প্রকাশ করে আসছে সংস্থাটি।

কিউএস বছরের বিভিন্ন সময়ে ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি র‌্যাংকিং, ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি র‌্যাংকিং বাই সাবজেক্ট, ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি র‌্যাংকিং রিজিয়নসহ একাধিক র‌্যাংকিং, প্রকাশ করে থাকে। কিউএসের প্রকাশিত সেরা বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকাকে বিশ্বব্যাপী সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য র‌্যাংকিংগুলোর মধ্যে একটি মনে করা হয়।