ঢাকা , শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঈদের ছুটিতে ভ্রমণের আগে যা খেয়াল রাখবেন

  • ডেস্ক :
  • আপডেট সময় ০১:৪০ অপরাহ্ন, সোমবার, ১০ জুন ২০২৪
  • 14

ভ্রমণের জন্য ঈদের ছুটি মোক্ষম সুযোগ। তাই বাংলাদেশের মানুষ ভ্রমণের জন্য এ সময়ই বিশেষ প্রস্তুতি নিয়ে থাকে। এ উপলক্ষে অনেকেই নানা রকম পরিকল্পনা করে থাকেন। পরিকল্পনা করার সময় একটু খেয়ালি হলে ভ্রমণ আরও আনন্দদায়ক ও সুন্দর হয়ে ওঠে।

প্রথমেই জানতে হবে কোথায় যাবেন? এজন্য কতদিন, বাজেট কত, কেমন স্থান পছন্দ, ভ্রমণসঙ্গী কতজন, ভ্রমণস্থানের প্রাপ্ত সুবিধার বিষয়গুলো মাথায় রাখতে হবে। তারপর স্থান নির্বাচন করলে পরিপূর্ণ মানসিক তৃপ্তি নিয়ে ঘুরে আসতে পারবেন। এ সময় বর্ষাকাল হলে পাহাড়, সবুজ বন, হাওড়, বিল, ঝরনা দেখতে যেতে পারেন। এ সময়ে নদী ও সমুদ্র উত্তাল থাকে, আবহাওয়াও থাকে বৈরী। তাই এসব অঞ্চল এড়িয়ে যাওয়াই ভালো।

ভ্রমণে কোন পথে যাবেন এটি নির্বাচন করতে হবে। তবে যে পরিবহনই ব্যবহার করেন না কেন, সবচেয়ে বেশি লক্ষ্য রাখবেন আপনার জীবনের নিরাপত্তা ও সুরক্ষার প্রতি। রাতে থাকতে চাইলে আগেই স্থান ঠিক করে নেওয়া ভালো। ভ্রমণের আবাসস্থল হতে হবে যথাসম্ভব ভালো। সারাদিন দৌড়-ঝাঁপ করে শরীর এবং মনকে বিশ্রাম দিতে ভালো আবাসস্থল অবশ্যই জরুরি।

আপনার কী কী পোশাক লাগতে পারে, সেগুলোর বাইরে সর্বাধিক একটি কিংবা দুটি জামা বেশি নিতে পারেন। স্থান, পরিবেশ ও সংস্কৃতি মাথায় রেখে পোশাক পরা উচিত। যে এলাকায় বেড়াতে যাবেন, সেখানকার স্থানীয় সংস্কৃতির সঙ্গে মিল রেখে পোশাক পরুন।

এ ছাড়া টুথপিক, কটনবাড, সেফটিপিন থেকে শুরু করে ফার্স্ট এইড বক্স, এমনকি সসপ্যান বা চা-কফি মেকারও নিতে পারেন। তবে লাগেজ যেন বেশি ভারী না হয়, সেদিকেও খেয়াল রাখতে হবে।

খাবার অবশ্যই স্বাস্থ্যসম্মত কি না, তা যাচাই করে নেওয়া উচিত। মোড়কজাত খাবার কেনার ক্ষেত্রে মেয়াদোত্তীর্ণ কি না খেয়াল রাখবেন। এ সময় সেদ্ধ এবং গরম খাবার খাওয়া উচিত। ফাস্টফুড, বেভারেজ, ফ্লেভারড জুস, চিপস ইত্যাদি পরিহার করুন। বিশুদ্ধ পানি পান করুন। পরিমাণে কম কিন্তু ঘনঘন পানি পান করুন।

ট্যাগস

ঈদের ছুটিতে ভ্রমণের আগে যা খেয়াল রাখবেন

আপডেট সময় ০১:৪০ অপরাহ্ন, সোমবার, ১০ জুন ২০২৪

ভ্রমণের জন্য ঈদের ছুটি মোক্ষম সুযোগ। তাই বাংলাদেশের মানুষ ভ্রমণের জন্য এ সময়ই বিশেষ প্রস্তুতি নিয়ে থাকে। এ উপলক্ষে অনেকেই নানা রকম পরিকল্পনা করে থাকেন। পরিকল্পনা করার সময় একটু খেয়ালি হলে ভ্রমণ আরও আনন্দদায়ক ও সুন্দর হয়ে ওঠে।

প্রথমেই জানতে হবে কোথায় যাবেন? এজন্য কতদিন, বাজেট কত, কেমন স্থান পছন্দ, ভ্রমণসঙ্গী কতজন, ভ্রমণস্থানের প্রাপ্ত সুবিধার বিষয়গুলো মাথায় রাখতে হবে। তারপর স্থান নির্বাচন করলে পরিপূর্ণ মানসিক তৃপ্তি নিয়ে ঘুরে আসতে পারবেন। এ সময় বর্ষাকাল হলে পাহাড়, সবুজ বন, হাওড়, বিল, ঝরনা দেখতে যেতে পারেন। এ সময়ে নদী ও সমুদ্র উত্তাল থাকে, আবহাওয়াও থাকে বৈরী। তাই এসব অঞ্চল এড়িয়ে যাওয়াই ভালো।

ভ্রমণে কোন পথে যাবেন এটি নির্বাচন করতে হবে। তবে যে পরিবহনই ব্যবহার করেন না কেন, সবচেয়ে বেশি লক্ষ্য রাখবেন আপনার জীবনের নিরাপত্তা ও সুরক্ষার প্রতি। রাতে থাকতে চাইলে আগেই স্থান ঠিক করে নেওয়া ভালো। ভ্রমণের আবাসস্থল হতে হবে যথাসম্ভব ভালো। সারাদিন দৌড়-ঝাঁপ করে শরীর এবং মনকে বিশ্রাম দিতে ভালো আবাসস্থল অবশ্যই জরুরি।

আপনার কী কী পোশাক লাগতে পারে, সেগুলোর বাইরে সর্বাধিক একটি কিংবা দুটি জামা বেশি নিতে পারেন। স্থান, পরিবেশ ও সংস্কৃতি মাথায় রেখে পোশাক পরা উচিত। যে এলাকায় বেড়াতে যাবেন, সেখানকার স্থানীয় সংস্কৃতির সঙ্গে মিল রেখে পোশাক পরুন।

এ ছাড়া টুথপিক, কটনবাড, সেফটিপিন থেকে শুরু করে ফার্স্ট এইড বক্স, এমনকি সসপ্যান বা চা-কফি মেকারও নিতে পারেন। তবে লাগেজ যেন বেশি ভারী না হয়, সেদিকেও খেয়াল রাখতে হবে।

খাবার অবশ্যই স্বাস্থ্যসম্মত কি না, তা যাচাই করে নেওয়া উচিত। মোড়কজাত খাবার কেনার ক্ষেত্রে মেয়াদোত্তীর্ণ কি না খেয়াল রাখবেন। এ সময় সেদ্ধ এবং গরম খাবার খাওয়া উচিত। ফাস্টফুড, বেভারেজ, ফ্লেভারড জুস, চিপস ইত্যাদি পরিহার করুন। বিশুদ্ধ পানি পান করুন। পরিমাণে কম কিন্তু ঘনঘন পানি পান করুন।